চাকরীর বিকল্প হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে ইন্টারনেট এর গুরুত্ব

একটা পিয়নের চাকরি হোক কিংবা বড় কোন পোষ্টের একটা চাকরি যে চাকরি হোক না কেন সেটা পেতে গেলে এখন রেশন দোকানে লাইন দেওয়ার মতন তোমাকে লাইন দিতে হবে। তাতে তোমার কাছে যত বড়ই ডিগ্রী থাকুক না কেন। আর যদি তোমার পকেটে এক বান্ডেল মোটা টাকা থেকে থাকে তাহলে সেই লাইনটা তোমার জন্য একটু ছোট হয়ে যাবে। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের চাকরি পাওয়ার অবস্থা একই রকম। আর যদি ব্যবসার কথা বলতো চাও, এখন সেটা জুয়াখেলা সমান হয়ে গিয়েছে।

চাকরীর বিকল্প হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে ইন্টারনেট এর গুরুত্ব

হাজার হাজার টাকা ইনভেস্ট করে তুমি সেই ব্যবসাতে সাকসেসফুল হবে এর কোনো গ্যারান্টি নেই। বর্তমানে এটাই সত্যি এটাই বাস্তব। তুমি মানো আর না মানো। একটা কাজের জন্য চারিদিকে হাহাকার চলছে। তো এরকম খারাপ সময়ে এরকম দুঃসময়ে একটা অপরচুনিটি আমাদের জন্য খুলে গিয়েছে। একটা জায়গা আছে যেখানে তোমার লিমিটেশন নেই, যেখানে তোমার কোন বাউন্ডারি নেই। তোমার মধ্যে যতটা পোটেনশিয়াল ততটাই তুমি এগিয়ে যেতে পারো। আর সেটা হচ্ছে ইন্টারনেট

শিক্ষায় ইন্টারনেটের গুরুত্ব

এখানে তোমাকে মাপর কেউ নেই তোমার মধ্যে যতটা ক্ষমতা আছে সেটাকে কাজে লাগিয়ে তুমি তোমার ক্যারিয়ারকে এক্সপেন্ড করতে পারো।  ফেসবুক-ইউটিউব ইনস্টাগ্রাম আমি এরকম কোন একটা প্ল্যাটফর্ম এর কথা বলছিনা।  ভিডিও এডিটিং অডিও এডিটিং ফটোশপ এরকম কোন একটা কাজের কথা বলছিনা।  আমি এই পোস্ট টি তে তোমাদেরকে বোঝাতে চাইছি একটা হোল্ড থিং,  একটা বড় জিনিস,  একটা নতুন কনসেপ্ট।

যেটা আমাদেরকে বুঝতে হবে, যে ফিজিক্যাল আমরা যে কাজগুলো করি যার মাধ্যমে আমরা ক্যারিয়ার তৈরি করি। তা বাদেও বর্তমান সময়ে একটা জিনিস শুরু হয়েছে, একটা কনসেপ্ট তৈরি হয়েছে, যেটার মাধ্যমে আমরা আমাদের ক্যারিয়ার তৈরি করতে পারি। যেখানে একটানা 100 টা কাজ আছে সেই কাজগুলো তোমাকে তোমার কোন বস নেই তুমি নিজেই বস। একটা নতুন একটা কনসেপ্ট যেটা হচ্ছে ইন্টারনেট ইন্টারনেট এর মাধ্যমে তুমি তোমার স্কিল ডেভেলপ করতে পারো।

শিক্ষায় ইন্টারনেটের গুরুত্ব

তুমি তোমার ক্যারিয়ার তৈরি করতে পারো। সমস্ত কিছু এখানে, সব থেকে ভালো বিষয় কি জানো, এখানে কোন লিমিট আসেননি। ইনফাইনাইট তোমার যোগ্যতা যাই থাকুক তুমি এত টুকুই পাবে এরকম লিমিটেশন এরকম ট্যাগ লাগানোর কেউ নেই। তোমার মধ্যে যতটা পোটেনশিয়াল আছে, তোমার মধ্যে যতটা ইচ্ছাশক্তি আছে, সেটাকে কাজে লাগিয়ে তুমি যতটা এগাতে চাইছো ততটা তুমি এগাতে পারো। এই পোস্টের  মাধ্যমে আমি সর্বপ্রথম একটা জিনিস তোমাদের মাথায় ক্লিয়ার করতে চাই।

যেটা এখনও অনেকের মাথায় ক্লিয়ার নেই বাকলিয়ার থাকলেও সেটা হাল্কা হাল্কা। সেটা হচ্ছে যে ভাই ফিজিক্যালি আমরা যে কাজ করি সেই কাজ করে আমরা যে কেরিয়ার বিল্ড করি সেটা বাদেও। সেটা আছে তো ঠিক আছে সেটা বাদেও এখন নতুন একটা কনসেপ্ট সেটা হচ্ছে অনলাইন ইন্টারনেটের মাধ্যমে আমরা আমাদের স্কিল ডেভেলপ করে যে কোন একটা কাজে ব্যস্ত হয়ে আমরা আমাদের নিজের ক্যারিয়ার তৈরি করতে পারি। নিজে নিজের বস হতে পারি।

ক্যারিয়ার গাইডলাইন

অনলাইনে ক্যারিয়ার বানানো এই যে জিনিসটা তোমাকে আমি বলছি না এটা ছোট কোন একটা জিনিশ না বা সামান্য সীমিত কয়েকটা কাজ, না এটা ইলির নাম্বার আছে প্রচুর পরিমাণে কাজ আছে। প্রচুর জিনিস আছে সব থেকে ভালো জিনিস হচ্ছে তুমি তোমার দিমাগ লাগিয়ে তুমি তোমার নিজের বুদ্ধি লাগিয়ে যেকোনো নতুন জিনিস যেকোনো নতুন ওয়ে তুমি এখানে ক্রিয়েট করতে পারো। আজকের সময় আমাদের প্রত্যেককেই আমরা পড়াশোনা করছি বা অন্য যেসব কাজ করছি।

ক্যারিয়ার গাইডলাইন

সে সব  এর পাশাপাশি অনলাইনে নিজের যে যোগ্যতার সেটাকে কাজে লাগিয়ে কিভাবে ক্যারিয়ার তৈরি করা যায় কিভাবে সেখান থেকে টাকা ইনকাম করা যায় সেই সম্বন্ধে নলেজ নেওয়া, তার সেই বিষয় গুলোর উপরে কাজ করা এটা খুবই প্রয়োজন। অনলাইনে তোমার নিজের ক্যারিয়ার তৈরি করা এটা আজকের সময়ে ম্যান্ডেটরি হয়ে গিয়েছে। এবার হয়তো তুমি বলতে পারো দাদা অনলাইনে কোনোকিছু একটা তৈরি করা ফেসবুকে কোন একটা কিছু বাই ইউটিউবে ইনস্টাগ্রামে আরো যেসব জিনিস আছে সেখানে কোনো কিছু একটা তৈরি করা মানে সে কোন গ্যারান্টি নেই হবে কি হবে না।

আরে তুমি যে ওয়ান থেকে কলেজ পর্যন্ত পড়াশোনা করে শেষ করে তারপরে যে চাকরি খুঁজব বা ব্যবসা করছে তার কোন গ্যারান্টি আছে যে এতবছর পড়াশোনা করে যে তুমি যে চাকরিটা হবে সেটার গ্যারান্টি পেয়ে যাবে, কোনো গ্যারান্টি নেই। আমি তোমাকে গ্যারান্টি দিচ্ছি অনলাইনে তুমি যে প্ল্যাটফর্ম টা যাচ্ছ সেই প্লাটফর্মে যে কাজটা করার চেষ্টা করছে তাতে যদি এক বছর দেড় বছর দু বছর সময় দাও তাহলে তুমি তোমার সেখানে তৈরি করতে পারবে, এটা হানডেট পারসেন্ট গ্যারান্টি।

অনলাইন থেকে ইনকাম করার যে কোন একটা রাস্তা নেই। অনলাইন থেকে ইনকাম করার যেকোনো একটা পদ্ধতি না হাজারো রাস্তা আছে হাজারো পদ্ধতি আছে। দরকার শুধু তোমার ইচ্ছা শক্তি আর তোমার বুদ্ধিটাকে যতটা কাজে লাগাবে ততটাই তুমি এগুতে পারবে। এই পোস্ট টিতে  আমি যে তোমাদেরকে মূল যেটা বোঝাতে চাইছিলাম যে, ফিজিক্যালি আমরা যে কাজগুলো করি তা বাদেও আরো একটা নতুন জিনিস যেটা বর্তমান সময়ে চালু হয়েছে সেটা হচ্ছে অনলাইনে ইন্টারনেটে যে কোন স্কিল, যেকোনো কাজ শিখে যেকোনো নিজের ট্যালেন্ট কে বাইরে বের করে সেখানেও তুমি তোমার ক্যারিয়ার তৈরি করতে পারো।

ক্যারিয়ার গড়ার কৌশল

তুমি তো সেখান থেকেও টাকা ইনকাম করতে পারো। তুমি এখন যে কাজটা করছো এখন যে পড়াশোনা করছ সেটা ছেড়ে দেওয়ার কোন দরকার নেই এখানকার এই প্ল্যাটফর্মের সবথেকে বেস্ট জিনিস। তুমি এটাকে যেটা যা করছো তার পাশাপাশি তোমার যা পছন্দ সেই রিলেটেড কোন কাজ শেখা। কোন জিনিস বোঝো কোন জিনিস জানো এবং পাশাপাশি সেটা করতে শুরু করো। আগামী ছয় মাস এক বছর দু বছরের মধ্যে তুমি সেই জিনিসের সেই ফিল্ডে অবশ্যই সাকসেস পাবে।

আর সাকসেস তুমি গ্যারান্টি পাবে এই জন্য আমি বলছি যখন তুমি অনলাইনে কোন কাজ করতে আসবে তখন শুধু টাকা দেখে আসবে না। তোমার পেশা কী তোমার ভাললাগার কাজটা তুমি করতে শুরু করবে। তো যে কাজটা করতে তোমার সব থেকে ভালো লাগে যে কাজটার প্রতি তুমি প্যাশনেট সেই কাজটা যখন তুমি করবে তখন হানডেট পারসেন সেটাতে গ্যারান্টি সাকসেস পাবে। তো আজকের পোস্ট টি এতোটুকুই বলার ছিল আশা করি যেটা আমি তোমাদেরকে বোঝাতে চেয়েছে সেটা তোমরা বুঝতে পেরেছ।  পোস্ট টি  ভালো লেগে থাকলে একটা কমেন্ট করে দিও। আমি ফিরে আসবো তোমাদের জন্য আরও একটি নতুন পোস্ট নিয়ে ধন্যবাদ.

Add a Comment

Your email address will not be published.